» রায়হান হত্যা : এসআই আকবরকে রিমান্ডে চাইবে পিবিআই

প্রকাশিত: ১০. নভেম্বর. ২০২০ | মঙ্গলবার

সিলেটের বন্দর বাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নিহত রায়হান উদ্দিন আহমদ (৩২) হত্যার মামলায় বরখাস্তকৃত উপপরিদর্শক (এসআই) আকবর হোসেন ভূঁইয়াকে গ্রেফতার দেখানো হবে। মামলার তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) আজ মঙ্গলবার দুপুর ২টার দিকে তাকে আদালতে হাজির করবে। তার পর তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ডে নেওয়ার আবেদনও করা হবে।

 

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইয়ের পুলিশ পরিদর্শক আওলাদ হোসেন মঙ্গলবার সকালে বলেন, জেলা পুলিশের কাছ থেকে আকবরকে আমাদের (পিবিআই) হেফাজতে নিয়ে আসা হয়েছে। আজ আদালতে তার সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করা হবে।

 

গতকাল সোমবার রাত ৮টার দিকে জেলা পুলিশ আকবরকে পিবিআইয়ের কাছে হস্তান্তর করে। রাতেই আকবরকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

 

গতকালই সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার সীমান্ত এলাকা থেকে আকবর হোসেন ভূঁইয়াকে আটক করা হয়। গত ১১ অক্টোবর বন্দর বাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে যুবক রায়হান আহমদের মৃত্যু হয়। এর দুদিন পরই আকবর পালিয়ে যান।

 

সিলেট নগরীর আখালিয়া এলাকার নেহারীপাড়ার মৃত রফিকুল ইসলামের ছেলে রায়হান উদ্দিন আহমদকে (৩৩) গত ১০ অক্টোবর রাতে বন্দর বাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতন করে হত্যা করা হয় বলে পুলিশের তদন্তেই বেরিয়ে এসেছে। পরের দিন ১১ অক্টোবর সকালে তার লাশ পায় পরিবার। পরে ওই দিন রাতে নিহত রায়হানের স্ত্রী বাদী হয়ে অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেন। মামলাটি তদন্ত করছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। স্বজনদের অভিযোগ, ১০ হাজার টাকা না পেয়ে রায়হানকে পুলিশ হেফাজতে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

 

এ ঘটনার পর ১২ অক্টোবর বন্দর বাজার পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বরত কর্মকর্তা এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়া, এসআই টিটু চন্দ্র দাস, কনস্টেবল হারুনুর রশিদ ও তৌহিদ মিয়াকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। এ ছাড়া প্রত্যাহার করা হয় সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) আশেক এলাহী, এএসআই কুতুব আলী ও কনস্টেবল সজিব হোসেনকে। পরে ২১ অক্টোবর মামলার আলামত নষ্টের অভিযোগে এসআই হাসানকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

[hupso]

সর্বশেষ