সর্বশেষ
|
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, আপডেট : ০৭ মে ২০২০ ০৬:০৫ ঘণ্টা

হাদিয়া ফাউন্ডেশন নিয়ে অসহায়দের মাঝে কাউন্সিলর জিল্লুর রহমান উজ্জ্বল

চেম্বার ডেস্ক: হাদিয়া ফাউন্ডেশন ইউএসএ এর সহযোগিতায় ও ১৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এবিএম জিল্লুর রহমান উজ্জ্বল এর ব্যবস্থাপনায় প্রায় সাড়ে ৮শত পরিবারকে খাদ্য সামগ্রী প্রদান করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার সিলেট নগরীর ১৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলের অফিসের সামনে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শফিল আলম চৌধুরী নাদেল।

খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কালে সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, এই দুর্যোগের সময় হাদিয়া ফাউন্ডেশন যে ভূমিকা রেখেছে তা অত্যন্ত প্রশংসার দাবিদার। সত্যি তারা অসহায় মানুষের পাশে দাড়ানোর মানসিকতা নিয়ে এগিয়ে এসেছে তার জন্য আমার নগরীর বাসির পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আমি প্রবাসীদের প্রতি কৃতজ্ঞ, আনন্দিত যে তারা এসময় সিলেটের মানুষের পাশে দাড়িয়েছেন। আমি আসা করবো আগামীতেও তারা মানুষের পাশে দাড়াবেন।

খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কালে শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল বলেন, বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসের প্রভাবে মানুষের চাকুরী নেই, ব্যবসা বাণিজ্য বন্ধ, তার পরও যুক্তরাজ্য, যুক্তরাজ্যের প্রবাসীরা দেশের জন্য ও সিলেটের মানুষের  জন্য এগিয়ে আসছেন। সরকার ত্রাণ ত্যৎপরতা চালিয়েছে, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগও মানুষের পাশে দাড়িয়েছে।  জনপ্রতিনিধিরা এগিয়ে আসছেন, সামাজিক সংগঠন এগিয়ে এসেছে তেমনি বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠন সহ এই দুর্যোগের সময় সবাই এগিয়ে আসা উচিত।

 

খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কালে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ ক্রিকেট টিমের প্লেয়ার আবু জাহেদ রাহি, মৌসুমী ক্রীড়া ও সমাজকল্যাণ সংস্থার সহ-সভাপতি আলী মো: মিজানুর রহমান, এম এ কিউ ফেরদৌস, ১৮নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি ওয়াবেদ বিন সুমন, ওয়াহিদুল হক চৌধুরী মারুফ, সৈয়দ ছালিম আহমদ, হেলেন বেগম, রাশেদ আহমদ রাশু প্রমুখ।

 

কাউন্সিলর  জজিল্লুর রহমান উজ্জ্বল বলেন,

 

হাদিয়া ফাউন্ডেশনের ব্যক্তিরা তাদের নাম গোপন রাখার শর্তে আমার কাছে মানুষকে সহযোগিতার বরাদ্দ দেওয়া হয়। সেই লক্ষে আমি হাদিয়া ফাউন্ডেশন ইউএসএ এর সহযোগিতায় ও ১৮নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন  শ্রেণী পেশা ও কর্মহীন মানুষের মাঝে প্রর্যায়ক্রমে সাড়ে ৮শত পরিবারকে এ খাদ্য সামগ্রী পৌছে দেওয়া হবে। আমি সিটি কর্পোরেশনের মাধ্যমে ৩হাজার পরিবারকে ও আমার ব্যক্তিগত উদ্যোগে ‘মানুষ মানুষের জন্য’ তহবিল থেকে ওয়ার্ডের মধ্যবিত্ত ২২৫ পরিববার ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রনালয়ের তহবিল সিলেট আর্ট এন্ড অটিস্টিক তহবিল ৩০ প্রতিবন্ধীকে ও বিভিন্ন সামাজি সংগঠনের  থেকে এনে আমি খাদ্য সহযোগিতা করে যাচ্ছি।

 

তিনি আরো বলেন, আমার বিরুদ্ধে যতই ষড়যন্ত্র হউক আমার ওয়ার্ডের একজন অধিবাসীও না খেয়ে থাকবে। আমার দুয়ার সবার জন্য সব সময় খোলা।

 

নির্বাচনের মাধ্যমে ওয়ার্ডবাসী আমাকে তাদের আমানত দিয়ে দিয়েছেন, এখন আমার পালা। আমি দিতে এসেছি, নিতে নয়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শাসনামলে কেউ না খেয়ে থাকবেন না।

 

আগামীতেও এ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।