সর্বশেষ
|
প্রকাশ: সোমবার, আপডেট : ১৭ ফেব্রু ২০২০ ০১:০২ ঘণ্টা

কানাইঘাট মুকিগঞ্জ বাজার মসজিদের টাকা অাত্মসাতের অভিযোগে যুবক কারাগারে

চেম্বার ডেস্ক: কানাইঘাটে মসজিদের ৭ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে এক যুবককে অাদালত কারাগার পাঠিয়েছেন। যুবকের নাম শফিকুর রহমান। তিনি গতকাল ১৬ ফেব্রুয়ারি, রবিবার টাকা অাত্মসাতের মামলায় অাদালতে অাত্মসমর্পন করলে অাদালত জামিন নামঞ্জুর করে জেলহাজতে পাঠানোর অাদেশ দেন।

 

শফিকুর রহমান উপজেলার রাজাগঞ্জ ইউনিয়নের ফালজুর পূর্ব গ্রামের মৃত অাব্দুস সালামের ছেলে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার মুকিগঞ্জ বাজার জামে মসজিদের পুন:নির্মাণ কাজ ২০১৭ ইংরেজী সালে শুরু হয় । মসজিদের ক্যাশিয়ার ছিলেন শফিকুর রহমান। মসজিদের নির্মাণ কাজের জন্য তিনি সকল অায় ব্যয় নির্বাহ করতেন। তিনি  গত ১৯ অাগষ্ট ২০১৮ ইংরেজী মসজিদ কমিটির কাছে একটি হিসাব দাখিল করেন। হিসাবে বিভিন্ন খাতে ২৫ লক্ষ ৪৮ হাজার ৬১৯ টাকা অায় দেখান, তাতে ব্যয় দেখান ২৫ লক্ষ ৪৮ হাজার ৭৭৭ টাকা। ১৫৮ টাকার ঘাটতি দেখিয়েছেন।  তখন হিসেবে গরমিল মনে হলে মসজিদ কমিটি ও স্থানীয় জনগণ একটি অডিট কমিটি গঠন করেন। অডিট কমিটির প্রধান ছিলেন স্থানীয় একটি বেসরকারী স্কুলের শিক্ষক ও মুকিগঞ্জ বাজার কমিটির সেক্রেটারী

মাহবুবুর রহমান।

অডিট কমিটি হিসাব পর্যালোচনা করে দেখে মোট প্রকৃত অায় ২৭ লক্ষ ৩৭ হাজার ৫৭২ টাকা। প্রকৃত ব্যয় ২০ লক্ষ ৩৭ হাজার ৫৬৪ টাকা। অডিট কমিটি এ রিপোর্ট প্রদান করে ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইংরেজী।

অর্থাৎ বিবাদী শফিকুর রহমানের কাছে ৭ লক্ষ ৮ টাকা উদ্ধৃত থাকে। তখন শফিকুর রহমান হিসাব মেনে নিয়ে টাকা ফিরত দিবেন বলে জানান। এরপর কয়েক তারিখ করে যখন টাকা দিতে গরিমসি শুরু করেন তখন মসজিদ কমিটির সদস্য অাখলাকুজ্জামান চৌধুরী মুকুট গত ১ অাগষ্ট ২০১৯ ইংরেজী সিলেট সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ২য় অাদালতে টাকা অাত্মসাতের অভিযোগে মামলা করেন। মামলা নং কানাইঘাট সি-অার ২৩৩/২০১৯।

অাদালত মামলা গ্রহণ করে পিবিঅাইকে তদন্তের জন্য প্রেরণ করে। পিবিঅাই দীর্ঘদিন তদন্ত করে অাসামীর বিরুদ্ধে অানীত অভিযোগ সত্য বলে তদন্ত প্রতিবেদন প্রদান করে। এ মামলায় অাসামীর বিরুদ্ধে সমন জারি ও ওয়ারেন্ট ইস্যু করা হয়। অাসামী শফিকুর রহমান

গতকাল অাদালতে অাত্মসমর্পন করলে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ৪র্থ অাদালতের বিচারক ফারজানা শাকিলা চৌধুরী দীর্ঘ শুনানী শেষে অাসামীর জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

অাসামী পক্ষে ছিলেন সিলেট জেলা বারের সাবেক সভাপতি এ কে এম এডভোকেট সমিউল অালম, এডভোকেট অরুন দেবনাথ, এডভোকেট  মাহি উদ্দিন তালুকদার, এডভোকেট রমা দেবনাথ। বাদী পক্ষে ছিলেন এডভোকেট মো: অাজহারুল ইসলাম চৌধুরী পাবেল।