|
প্রকাশ: সোমবার, আপডেট : ০৬ জানু ২০২০ ০৯:০১ ঘণ্টা

আওয়ামী লীগ সরকারের বছর পূর্তি আগামীকাল

চেম্বার ডেস্ক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গঠিত আওয়ামী লীগ সরকারের বছর পূর্তি আগামীকাল। আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বঙ্গবন্ধু কণ্যা শেখ হাসিনা গত বছরের ৭ জানুয়ারি চতুর্থবারের মত প্রধানমন্ত্রী হিসাবে শপথ নেন এবং ৪৭ সদস্য বিশিষ্ট মন্ত্রী সভা গঠন করেন। একই বছরের ৩০ জানুয়ারি একাদশ সংসদের প্রথম অধিবেশন শুরু হয়ে ২৬ কার্যদিবস চলার পর ১১ মার্চ অধিবেশনটি শেষ হয় । অধিবেশনের শুরুতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ভাষণ দেন।

বিশ্লেষকরা মনে করেন এই এক বছরে দেশের সার্বিক উন্নয়নে বেশ কিছু সফলতা দেখিয়েছে সরকার। বিশেষ করে-দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি সরকারের বড় সাফল্য।

আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহার অনুযায়ী মেগা প্রকল্পকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়েছিল। পদ্মা সেতু নির্মাণসহ প্রায় ডজনখানেক বড় প্রকল্প সময়মত শেষ করার লক্ষেই দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে কাজ। বর্তমানে দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা দাঁড়িয়েছে ২২ হাজার ৭৬৭ মেগাওয়াট। যার মধ্য দিয়ে দেশের ৯৫ শতাংশ জনগোষ্ঠী বিদ্যুৎ সুবিধার আওতাভুক্ত।

এছাড়াও ‘আমার গ্রাম আমার শহর’ আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে অন্যতম কর্মসূচির কাজও এগিয়ে যাচ্ছে। যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সরবরাহ বৃদ্ধি, কম্পিউটার ও দ্রুতগতির ইন্টারনেট সুবিধার মাধ্যমে গ্রামের সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধির চেষ্টা অব্যহত রয়েছে বলেও অনেকে মনে করেন।

অন্যদিকে নারীর ক্ষমতায়ন, দারিদ্র্য বিমোচন, খাদ্য নিরাপত্তা অর্জনের নিশ্চয়তা বাস্তবায়নের পথে। শিল্পায়ন, শিক্ষায় উন্নতি, সড়ক, রেলপথ ও বিমান পথে যোগাযোগের অভূতপূর্ব উন্নয়ন ঘটেছে, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উক্ষপণের মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন পূরণের পথে অনেক দূর এগিয়েছে বাংলাদেশ।

এর আগে ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ মহাজোট গঠনের মধ্যদিয়ে নিরঙ্কুশভাবে জয় পায় এবং টানা তৃতীয়বারের মত পাঁচ বছরের জন্য সরকার পরিচালনার দায়িত্ব পায় । একই বছরের ৮ নভেম্বর নির্বাচন কমিশনের প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন। ঘোষণায় ২৩ ডিসেম্বর নির্বাচনের তারিখ ঠিক করা হলেও ১২ নভেম্বর পুনঃতফসিলে তা পিছিয়ে ৩০ ডিসেম্বর নির্ধারিত হয়।

নির্বাচনে বাংলাদেশের দু’টি দল, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) নেতৃত্বে গঠিত মহাজোট ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট জোটসহ বাংলাদেশের নিবন্ধিত সর্বমোট ৩৯টি দল অংশগ্রহণ করে।