|

খোকার মরদেহ আনার প্রক্রিয়া শুরু, দাফন জুরাইনে বাবার কবরে

চেম্বার ডেস্ক: বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার মরদেহ দেশে আনার প্রক্রিয়া চলছে। মরদেহ দেশে আসলে জুরাইন কবরস্থানে বাবার কবরে তাকে শায়িত করা হবে।

 

 

এছাড়া, সোমবার (৪ নভেম্বর) দুপুরে নিউইয়র্কে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়ার পর বিকেলে তার ৩/১ গোপীবাগের বাসায় শোক বই খোলা হয়েছে। সাদেক হোসেন খোকার ব্যক্তিগত সহকারী নজরুল ইসলাম কিরণ  এতথ্য নিশ্চিত করেছেন।

 

কিরণ বলেন, গোপীবাগের বাসায় এসে রাত ৮টা নাগাদ শোক বইয়ে সই করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, দলের যুগ্ম-মহাসচিব হাবিব উন নবী খান সোহেল, মহানগর বিএনপি নেতা কাজী আবুল বাসার, তানভীর আহমেদ রবিন, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য আবু হোসেন বাবলা। এছাড়া সাদেক হোসেন খোকার মৃত্যুর সংবাদ পাওয়ার পরপরই বিপুল সংখ্যক দলীয় নেতাকর্মী ও স্থানীয় জনগণ তার বাসায় ভিড় করছেন বলেও জানান তিনি।

 

সাদেক হোসেন খোকার দুই ভাই ও ছয় বোন। এর মধ্যে বর্তমানে তার ছোট ভাই আনোয়ার হোসেন উজ্জ্বল ও ছোট বোন খুকু ঢাকায় আছেন। বাবি চার বোন, স্ত্রী ইসমাত হোসেন, বড় ছেলে ইসরাক হোসেন, ছোট ছেলে ইসফাক হোসেন ও মেয়ে সারিকা সাদেক বর্তমানে নিউইয়র্কে অবস্থান করছেন।

সাদেক হোসেন খোকার মরদেহ নিউইয়র্ক থেকে ঢাকায় আনার প্রক্রিয়া চলছে জানিয়ে নজরুল ইসলাম কিরণ বলেন, আপাতত আমাদের কাছে এর চেয়ে বেশি কোনো তথ্য নেই। তবে, যখনই নতুন কোনো তথ্য পাবো, সেটা মিডিয়ার মাধ্যমে জানানোর চেষ্টা করবো।

 

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, সাদেক হোসেন খোকার একটি মামলায় সাজা হয়। তার স্ত্রী, এক ছেলে ও মেয়ের বিরুদ্ধেও মামলা রয়েছে। সেসব মামলা এখন কী অবস্থায় রয়েছে সঠিক বলতে পারবো না। তবে, ছোট ছেলে অপ্রাপ্ত বয়স্ক, তার বিরুদ্ধে কোনো মামলা নেই।

 

বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ  বলেন, সাদেক হোসেন খোকার মরদেহ কখন ঢাকায় আসবে সেটা এখনো বলা যাচ্ছে না। মৃত্যুর পরপরই নিউইয়র্কে তার পরিবারের সদস্য ও নিউইয়র্ক বিএনপির নেতারা এ বিষয়ে সব কাগজপত্র ঠিক করার চেষ্টা চালাচ্ছেন। কাগজপত্র ঠিক হওয়া ও ফ্লাইট শিডিউলের ওপর এসব বিষয় নির্ভর করছে।