|

যেকোনো মুহূর্তে সরকারের পতন: খন্দকার মাহবুব

চেম্বার ডেস্ক: সরকার দোদুল্যমান অবস্থায় আছে মন্তব্য করে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেছেন, যেকোনো সময় সরকারের পতন ঘণ্টা বেজে যাবে।

 

শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে অবস্থান কর্মসূচিতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরাম নামে একটি সংগঠন এ কর্মসূচির আয়োজন করে।

 

মাহবুব হোসেন বলেন, ক্ষমতাসীন অবৈধ সরকারকে ভয় করার কিছু নেই। তাদের পায়ের তলে মাটি নেই। তারা দোদুল্যমান অবস্থায় আছে। যেকোনো মুহূর্তে তাদের ধাক্কা দিলেই পতন হবে। তাদের সঙ্গে কেউ নেই, পতন অনিবার্য।

 

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির এই সভাপতি বলেন, এই সরকার অবৈধ। পাতানো নির্বাচনের মাধ্যমে তারা ক্ষমতায় এসেছে। তাদের উচিত নিরপেক্ষ সরকারের মাধ্যমে নির্বাচন করা।

 

প্রধানমন্ত্রীর কাছে অপরাধীদের তালিকা আছে-আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদকের এমন বক্তব্যের জবাবে খন্দকার মাহবুব বলেন, ওবায়দুল কাদের বলেছেন প্রধানমন্ত্রীর কাছে নাকি অপরাধীদের তালিকা আছে। তালিকা রেখে লাভ নেই। আমরা দেখতে চাই কারা সেই অপরাধী। তাদেরকে গ্রেফতার করে বিচারের কাঠগড়ায় নিয়ে আসতে হবে।

 

ওবায়দুল কাদেরের সমালোচনা করে বিএনপির এই ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, আপনি বারবার ভালো ভালো কথা বলবেন আর চমক সৃষ্টি করবেন, সেই চমক সৃষ্টির দিন চলে গেছে। সৎ সাহস থাকলে সত্য প্রকাশ করুন। দুর্নীতিবাজ-অপরাধীদের তালিকা প্রকাশ করুন।

 

বিচারবিভাগের ওপর হস্তক্ষেপ না করতে সরকারের হুশিয়ার করে তিনি বলেন, বিচার হাইকোর্ট নিয়ে খেলতে যাবেন না, বিচার বিভাগকে নিয়ে খেলতে যাবেন না। বিচারকরাও আপনার খেলার সঙ্গী হবে না। যদি হয় তাহলে দেশে অস্থির অবস্থার সৃষ্টি হবে। কিন্তু এটা আমরা চাই না। আল্লাহর নামে শপথ নিয়ে বলছি, আর কোনোদিন করুণা ভিক্ষা করবো না। হাইকোর্টের বিচার যদি থাকে, সংবিধান অনুযায়ী বিচার যদি করতে পারে, তাহলে হাইকোর্টের অস্তিত্ব থাকবে। নতুবা অস্তিত্ব থাকবে না।

 

আইনি প্রক্রিয়ায় খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেয়ার আহ্বান জানিয়ে বিএনপির এই সিনিয়র আইনজীবী বলেন, সংবিধানে হাইকোর্টকে যে অধিকার দেয়া হয়েছে, সেখানে যদি আইনের শাসন না থাকে তাহলে সেই হাইকোর্ট থাকার অস্তিত্ব নেই। আমরা শপথ নিয়ে এসেছি, বাংলাদেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করব। আমি হাইকোর্ট এবং সুপ্রিম কোর্টের মাননীয় বিচারপতিদের সতর্ক করে দিয়ে বলতে চাই, দেশে আইনের শাসন যদি না থাকে তাহলে আপনাদের ও শাসন থাকবে না, আপনাদের অস্তিত্ব থাকবে না। জনগণ আপনাদেরকে মাঠে টেনে নিয়ে আসবে।

 

নতুন নির্বাচন দাবি করে তিনি বলেন, আমরা অনেক দেখেছি, আমাদের ধৈর্য হারিয়েছে। এখনও সময় আছে পদত্যাগ করে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিন।

 

আয়োজক সংগঠনের সহ-সভাপতি মোহাম্মদ রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে এবং সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক এম জাহাঙ্গীর আলমের সঞ্চালনায় প্রতীকী অবস্থান কর্মসূচিতে বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সৈয়দ মেহেদী আহমেদ রুমী, যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল,নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মোহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, প্রিন্সিপাল শাহ মোহাম্মদ নেসারুল হক, তাঁতী দলের যুগ্ম আহ্বায়ক ড. কাজী মনিরুজ্জামান মনির প্রমুখ বক্তব্য দেন।